ঢাকা২০শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১১ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থ বানিজ্য
  2. আইন আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আবহাওয়া
  5. ইসলাম
  6. এভিয়েশন
  7. ক্যাম্পাস
  8. খেলা
  9. জব মার্কেট
  10. জাতীয়
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. দেশবাংলা
  13. বিনোদন
  14. রাজনীতি
  15. লাইফস্টাইল
বিজ্ঞাপন
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ইবির হলে ছাত্রীকে নির্যাতন: আতঙ্কে গণরুম ছাড়ছেন শিক্ষার্থীরা

জনবার্তা প্রতিনিধি
ফেব্রুয়ারি ১৬, ২০২৩ ১০:০৪ অপরাহ্ণ
Link Copied!

কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) ছাত্রী হলে সাড়ে চার ঘণ্টা আটকে রেখে প্রথম বর্ষের এক ছাত্রীকে নির্যাতনের ঘটনায় আতঙ্কে গণরুম ছাড়ছেন শিক্ষার্থীরা। তবে এ পর্যন্ত কতজন শিক্ষার্থী রুম ছেড়েছেন তা জানাতে পারেনি তথ্য কর্তৃপক্ষ।  বৃহস্পতিবার দুপুরে সরেজমিনে দেখা যায়, হলের ডাইনিং কক্ষে ঢুকতেই প্রজাপতির দুটি কক্ষ। ওই সময় সেখানে তেমন কেউ ছিলেন না।
দেশরত্ন শেখ হাসিনা হলের দায়িত্বরত সহকারী রেজিস্ট্রার আবদুর রাজ্জাক বলেন, হলে আবাসিক আসনসংখ্যা ৫৬৮টি। গণরুমসহ ৮৭৮ ছাত্রী হলে থাকেন। ছয়টি গণরুমে থাকেন অন্তত ১৩৪ জন। ছয়টি গণরুমের মধ্যে প্রজাপতিতে থাকেন ৩৩ ছাত্রী। প্রজাপতির দুটি কক্ষ। একটি কক্ষে ছাত্রী নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। ওই কক্ষে থাকেন ১৬ জন।
গত রোববার রাত ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সহসভাপতি সানজিদা চৌধুরীর নেতৃত্বে তার অনুসারীরা দেশরত্ন শেখ হাসিনা হলের গণরুমে প্রথম বর্ষের এক ছাত্রীকে নির্যাতন করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। তাকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ, গালাগাল ও এ ঘটনা কাউকে জানালে মেরে ফেলার হুমকি দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া যায়।
এ ঘটনায় মঙ্গলবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর, হলের প্রভোস্ট ও ছাত্র উপদেষ্টার কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন ওই শিক্ষার্থী। ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন, হল কর্তৃপক্ষ ও শাখা ছাত্রলীগ পৃথক তিনটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। তদন্ত কমিটিতে রয়েছেন আটজন শিক্ষক, দুইজন কর্মকর্তা ও চারজন ছাত্রনেতা।
সানজিদা চৌধুরী বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসংখ্যান বিভাগের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী। অপর অভিযুক্ত তাবাসসুম ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের ছাত্রী। ভুক্তভোগী ছাত্রীও একই বিভাগের।
অভিযোগের ব্যাপারে সানজিদা চৌধুরী বলেন, অভিযোগের কোনো সত্যতা নেই। একটি কুচক্রী মহল আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে।
বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর শাহাদাত হোসেন বলেন, উপাচার্যের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে শিক্ষকরা কথা বলছেন। এ বিষয়ে পরে কথা বলতে পারব।