ঢাকা১৪ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৭ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি ৩০শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থ বানিজ্য
  2. আইন আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আবহাওয়া
  5. ইসলাম
  6. এভিয়েশন
  7. ক্যাম্পাস
  8. খেলা
  9. জব মার্কেট
  10. জাতীয়
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. দেশবাংলা
  13. বিনোদন
  14. রাজনীতি
  15. লাইফস্টাইল
বিজ্ঞাপন
আজকের সর্বশেষ সবখবর

দেশের রাজনীতিতে দেয়াল নয়, সেতু বানাব: ওবায়দুল কাদের

জনবার্তা প্রতিনিধি
জানুয়ারি ২৬, ২০২৩ ৯:১৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, এ দেশের রাজনীতিতে আমরা দেয়াল তৈরি করব না। আমরা সেতু বানাব। এ দেশের রাজনীতিতে আমরা সেতুবন্ধন রচনা করব। এটাই হোক আমাদের শপথ।

বৃহস্পতিবার বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলে সরস্বতী পূজার মণ্ডপ পরিদর্শনকালে তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, উন্নয়ন ও শান্তির অভিসারী শেখ হাসিনা ভিশন-২০২১ থেকে ভিশন-২০৪১ এর দিকে এগিয়ে যাচ্ছেন। যার মূল লক্ষ্য হচ্ছে স্মার্ট বাংলাদেশ। আসুন স্মার্ট বাংলাদেশের কুশীলব হয়ে, কারিগর হয়ে শেখ হাসিনাকে সহযোগিতা করি এবং তার হাত শক্ত করি। শান্তির পতাকা উড়িয়ে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলার রূপান্তর ঘটাই।

তিনি বলেন, সাম্প্রদায়িকতা ও জঙ্গিবাদ আমাদের নম্বর ওয়ান শত্রু। সাম্প্রদায়িকতা এখন আমাদের সকলের অভিন্ন শত্রু। এই সাম্প্রদায়িকতা, জঙ্গিবাদ রুখতে হবে এবং এই ক্যাম্পাসকে একটি শান্তিময় ক্যাম্পাসে রূপান্তর করতে হবে।

সরস্বতীর পূজা পরিদর্শনে এসে আওয়ামী লীগের এই নেতা আরও বলেন, জগন্নাথ হল আমার জীবনের এক স্মৃতিময় অধ্যায়। বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদ আন্দোলনের সব কর্মকাণ্ড এখান থেকে পরিচালিত হতো। জগন্নাথ হল থেকে প্রস্তুতি নিয়ে আমরা প্রথম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনের সামনে প্রতিবাদ সমাবেশ করেছিলাম। এরপর বটতলা থেকে চার নভেম্বর গণমিছিল ও শোক শোভাযাত্রা বের করি, যার গন্তব্য ছিল বঙ্গবন্ধুর ৩২ নম্বরের বাসভবন।

বিভিন্ন সময়ে কারাবরণের কথা উল্লেখ করে কাদের আরও বলেন, ৭৫’র পরে জিয়াউর রহমানের সময়ে কারাগারে আড়াই বছর জেল খেটেছি। প্রথমে ঢাকা কারাগারে পরে ফরিদপুর কারাগারে। কারাগারে থাকা অবস্থায় আমি খবর পাই আমাকে ছাত্রলীগের কাউন্সিলে সভাপতি করা হয়েছে। আমি গর্বিত, আমি কারাগার থেকে প্রথম সভাপতি ছিলাম। এরপরে আরও অনেক রেকর্ড হয়েছে। আমাকে তিন-তিন বার আওয়ামী লীগের মত দলের সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে। আওয়ামী লীগ সরকারে আমি ১৬ বছর মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছি। আমি এই জন্য‌ও গর্বিত, আমার ধমনীতে ছাত্রলীগের রক্ত প্রবাহিত। আমি ছাত্রলীগের গৌরবময় ইতিহাসের উত্তরাধিকারী। ছাত্রলীগ করলে কেউ হারিয়ে যায় না। কমিটমেন্ট থাকলে জীবনের অনেক অসাধ্য সাধন করা যায়।

এর আগে তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে এবং নিজের পক্ষ থেকে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সরস্বতী পূজার শুভেচ্ছা জানান। এ সময় জগন্নাথ হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মিহির লাল সাহা, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি সাদ্দাম হোসেন, সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনান, ঢাবি ছাত্রলীগের সভাপতি মাজহারুল কবির শয়ন ও সাধারণ সম্পাদক তানভীর হাসান সৈকত উপস্থিত ছিলেন।