ঢাকা২৫শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থ বানিজ্য
  2. আইন আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আবহাওয়া
  5. ইসলাম
  6. এভিয়েশন
  7. ক্যাম্পাস
  8. খেলা
  9. জব মার্কেট
  10. জাতীয়
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. দেশবাংলা
  13. বিনোদন
  14. রাজনীতি
  15. লাইফস্টাইল
বিজ্ঞাপন
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বাধা পেরিয়ে অটোরিকশায়, হেঁটে সমাবেশে নেতা–কর্মীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নভেম্বর ১৯, ২০২২ ৭:৫৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

আজকের এই সমাবেশ ঘিরেও বাধাবিপত্তি রয়েছে। পরিবহন ধর্মঘট মাথায় রেখে বুধবার থেকে নেতা-কর্মীরা সিলেটে আসা শুরু করেন।

সুনামগঞ্জের শাল্লা থেকে সিলেট প্রায় ৯৯ কিলোমিটার রাস্তা। মোটরসাইকেল বা নৌকায়, পরে বাসে এই পথ পাড়ি দিয়ে সিলেট পৌঁছাতে একজন যাত্রীর সময় লাগে পৌনে তিন থেকে সাড়ে চার ঘণ্টা। গতকাল শুক্রবার সাইফুর রহমান এই পথ পাড়ি দিয়েছেন ১০ ঘণ্টায়। সকাল সাতটায় রওনা দিয়ে চার জায়গায় বাধা পেয়েছেন। গাড়ি বদল করে অবশেষে বিকেল পাঁচটায় তিনি সিলেটের আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে পৌঁছান।

সাইফুর রহমানের মতো রাস্তার বাধা-প্রতিবন্ধকতা এড়িয়ে বিএনপির অনেক নেতা-কর্মী সিলেটের বিভাগীয় গণসমাবেশে উপস্থিত হচ্ছেন। আজ শনিবার বিকেলে সিলেট নগরের আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে এই সমাবেশ হবে।

চট্টগ্রাম ও ময়মনসিংহ ছাড়া অন্যান্য বিভাগীয় সমাবেশের মতো সিলেটেও গণসমাবেশকে কেন্দ্র করে গতকাল থেকে সিলেট ছাড়া অপর তিন জেলায় পরিবহন ধর্মঘট চলছে। আজ অপর তিন জেলার সঙ্গে সিলেটেও সকাল-সন্ধ্যা ধর্মঘট চলবে। সেই সঙ্গে নতুন করে পুলিশের মামলা, গ্রেপ্তার, জায়গায় জায়গায় বাধা এবং শহরে ছাত্রলীগের মোটরসাইকেল মহড়াও আছে। এই সমাবেশকে কেন্দ্র করে হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজার ও সুনামগঞ্জ থেকে সিলেট অভিমুখী বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে জেলা বাস মালিক সমিতি ও পরিবহন শ্রমিক সংগঠনগুলো। এর ফলে সাধারণ মানুষও চরম দুর্ভোগের মুখে পড়েছেন।

আজ সমাবেশ হলেও পরিবহন ধর্মঘটের কথা মাথায় রেখে বুধবার থেকে বিএনপির নেতা-কর্মীরা সিলেটে আসা শুরু করেন। মোটরসাইকেল, অটোরিকশা, সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে, আবার অনেকে হেঁটে সমাবেশস্থলে জড়ো হচ্ছেন। মূলত হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজার ও সুনামগঞ্জ জেলার প্রত্যন্ত উপজেলার নেতা-কর্মীদের একটি অংশ আগেভাগেই সিলেটে পৌঁছায়। তিন দিন ধরে তাঁদের বেশির ভাগ আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে ঘুমান। সেখানেই তাঁরা খাওয়াদাওয়া সারেন। গতকাল সন্ধ্যায় আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে গিয়ে দেখা যায়, সমাবেশস্থল প্রায় পরিপূর্ণ। নেতা-কর্মীরা মিছিল নিয়ে মাঠে ঢুকছেন।

গণসমাবেশ সফল করতে গতকালও সিলেট শহরে একাধিক প্রচার মিছিল হয়েছে। বিকেল চারটার দিকে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর নেতৃত্বে মিছিল বের হয়।

জ্বালানি তেলসহ নিত্যপণ্যের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি, দলের পাঁচ নেতা-কর্মীকে গুলি করে হত্যার প্রতিবাদে; বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং নির্দলীয় ও নিরপেক্ষ সরকারের অধীন সংসদ নির্বাচনের দাবিতে বিএনপি সারা দেশে ধারাবাহিকভাবে গণসমাবেশ করছে। আজ সিলেটে সমাবেশের পর ২৬ নভেম্বর কুমিল্লায় ও ৩ ডিসেম্বর রাজশাহীতে সমাবেশ হবে। সবশেষে ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় গণসমাবেশ হওয়ার কথা।

এর আগে ১২ অক্টোবর চট্টগ্রামে প্রথম গণসমাবেশ হয়। এরপর ময়মনসিংহ, খুলনা, রংপুর, বরিশাল ও ফরিদপুরে সমাবেশ হয়। চট্টগ্রাম ছাড়া সব সমাবেশের দুই দিন আগেই পরিবহন ধর্মঘট ডাকা হয়। এর মধ্যে ময়মনসিংহে ধর্মঘট ছিল অঘোষিত।